১১ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যায়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১০ হাজার ল্যাট্রিন নির্মাণ করে দিবে ইউনিসেফ। এর বাস্তবায়নের কাজ  করবে সেনাবাহিনী। এ লক্ষ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে আজ এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষে যুগ্ম সচিব (রোহিঙ্গা সেল) হাবিবুল কবির এবং ইউনিসেফের পক্ষে বাংলাদেশে ইউনিসেফের কান্ট্রি ডিরেক্টর এডওয়ার্ড বিগবেডার সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এবং সচিব মো. শাহ কামাল এ সময় উপস্থিত ছিলেন। মায়া  জানান, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্য, সেনিটেশন ও সুপেয় পানি ব্যবস্থাপনা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এর লক্ষ্যে সরকার দেশি-বিদেশি সংস্থার সমন্বয়ে কাজ করে যাচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩৫ হাজার লেট্রিন প্রয়োজন। সরকার ইতোমধ্যে ৭ হাজারের অধিক লেট্রিন নির্মাণ করেছে। অবশিষ্ট লেট্রিন ইউএনএইচসিআর, আইওম ও অন্যান্য এনজিও নির্মাণ করবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইতোমধ্যে বিভিন্ন রোগের টিকা দেয়া হয়েছে এবং একাজ চলমান রয়েছে জানিয়ে তিনি ক্যাম্পে ইউনিসেফ শিক্ষা, চিকিৎসা ও সেনিটেশন কাজে ব্যাপক সহযোগিতা করায় ইউনিসেফকে ধন্যবাদ জানান।

" />
 

রোহিঙ্গাদের জন্য ১০ হাজার ল্যাট্রিন নির্মাণ করবে ইউনিসেফ

MuzahidAlam 2017-10-11 দুর্ঘটনা

১১ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যায়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১০ হাজার ল্যাট্রিন নির্মাণ করে দিবে ইউনিসেফ। এর বাস্তবায়নের কাজ  করবে সেনাবাহিনী। এ লক্ষ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে আজ এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষে যুগ্ম সচিব (রোহিঙ্গা সেল) হাবিবুল কবির এবং ইউনিসেফের পক্ষে বাংলাদেশে ইউনিসেফের কান্ট্রি ডিরেক্টর এডওয়ার্ড বিগবেডার সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এবং সচিব মো. শাহ কামাল এ সময় উপস্থিত ছিলেন। মায়া  জানান, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্য, সেনিটেশন ও সুপেয় পানি ব্যবস্থাপনা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এর লক্ষ্যে সরকার দেশি-বিদেশি সংস্থার সমন্বয়ে কাজ করে যাচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩৫ হাজার লেট্রিন প্রয়োজন। সরকার ইতোমধ্যে ৭ হাজারের অধিক লেট্রিন নির্মাণ করেছে। অবশিষ্ট লেট্রিন ইউএনএইচসিআর, আইওম ও অন্যান্য এনজিও নির্মাণ করবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইতোমধ্যে বিভিন্ন রোগের টিকা দেয়া হয়েছে এবং একাজ চলমান রয়েছে জানিয়ে তিনি ক্যাম্পে ইউনিসেফ শিক্ষা, চিকিৎসা ও সেনিটেশন কাজে ব্যাপক সহযোগিতা করায় ইউনিসেফকে ধন্যবাদ জানান।